ভূপেন হাজারিকা সেতু বা ঢোলা-সাদিয়া সেতু হল পূর্ব ভারতের আসাম রাজ্যে লোহিত নদীর উপর নির্মিত একটি সেতু। এই সেতু প্রতিবেশী দুই রাজ্য অসম আর অরুণাচল প্রদেশকে যুক্ত করেছে।

এটি ভারত তথা দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম সড়ক সেতু। ঢোলা থেকে সাদিয়া পর্যন্ত ৯ কিলোমিটারের বেশি দৈর্ঘ্য জুড়ে ব্রহ্মপুত্রের উপনদী লোহিত নদীর উপরে তৈরি হয়েছে ভূপেন হাজারিকা সেতু। 

অসমের রাজধানী গুয়াহাটি থেকে সাদিয়ার দূরত্ব ৫৪০ কিলোমিটার। অন্য দিকে, অরুণাচলের রাজধানী ইটানগর থেকে ঢোলার দূরত্ব ৩০০ কিলোমিটার। 

এই সেতুর সুবাদে দুই রাজ্যের মধ্যে সড়কপথের যাতায়াত আরও সহজ হয়েছে। অরুণাচলে কোনও বিমানবন্দর নেই। এই সেতু চালুর ফলে অসম থেকে অরুণাচল পর্যন্ত চার ঘণ্টায় পৌঁছানো যায়। 

মুম্বইয়ের বিখ্যাত বান্দ্রা-ওরলি সমুদ্র সংযোগ সেতুর থেকে ৩০ শতাংশ বেশি দীর্ঘ এই সেটি। এই সেতুটি বান্দ্রা-ওরলি সমুদ্র সংযোগ সেতুর চেয়ে প্রায় ৩.৫৫ কিলোমিটার বেশি দীর্ঘ।

 ২০১১ সালে শুরু হয়েছিল এই সেতু তৈরির কাজ। খরচ হয়েছে ৯৫০ কোটি টাকা । সাধারণ মানুষসহ সেনাবাহিনীর কাছেও এই সেতুর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

অরুণাচলের উত্তর দিকে রয়েছে চিন সীমান্ত। ফলে এই অঞ্চল থেকে দেশের মূলভাগের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ঢোলা-সাদিয়া সেতু। 

ঢোলা-সাদিয়া সেতুর যোগাযোগ ব্যবস্থার আরও উন্নতির জন্য ২০১৫ সালে ১৫,০০০ কোটি টাকার একটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার।

যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে ৬০-টন ওজনের ট্যাঙ্ক যেমন ভারতীয় সেনাবাহিনীর অর্জুন এবং T-72 প্রধান যুদ্ধ ট্যাংক ইত্যাদি খুব সহজেই ধোলা-সাদিয়া সেতুর উপর দিয়ে যেতে পারবে।

 ভারতের বিহার রাজ্যে নির্মাণাধীন ৯.৭৬ কিলোমিটার  কাচ্চি দরগাহ-বিদুপুর সেতুটি জুলাই 2023-এ তার আনুমানিক সমাপ্তির পরে ভারতের দীর্ঘতম সেতু হয়ে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে।